মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২৩ মাঘ ১৪২৯

গুলি করে হত্যার দায়ে পুলিশকে যাবজ্জীবন
হবিগঞ্জ প্রতিনিধি:
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১০ নভেম্বর, ২০২২, ৬:২৭ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

গুলি করে হত্যার দায়ে পুলিশকে যাবজ্জীবন

গুলি করে হত্যার দায়ে পুলিশকে যাবজ্জীবন

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার শাহজীবাজার রেল স্টেশনে কলেজ ছাত্রকে রাইফেল দিয়ে গুলি করে হত্যার অভিযোগে এক রেল পুলিশ সদস্যকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে আসামিকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ঘটনার ৩০ বছর পর বুধবার (৯ নভেম্বর) বিকেলে হবিগঞ্জের বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-১ মোঃ আজিজুল হক এ দণ্ডাদেশ দেন।

আদেশে বলা হয়েছে, জরিমানা করা ১০ লাখ টাকা নিহতের পরিবারকে দেয়া হবে। দণ্ডপ্রাপ্ত কনস্টেবল নং-৬৫৩ রওশন আলী কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার রাজাপুর গ্রামের বাসিন্দা দেওয়ানুল ইসলামের পুত্র। রায় ঘোষণার সময় আসামি পলাতক ছিল। রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন আইনজীবি সমিতির সভাপতি অতিরিক্ত পিপি সালেহ উদ্দিন আহমেদ।

আদালতের পেশকার সৈয়দ গোলাম হাদী জানান, ১৯৯৩ সালের ২১ ডিসেম্বর শায়েস্তাগঞ্জ থেকে শাহজীবাজার যাবার জন্য লোকাল ট্রেনে উঠেন মাধবপুর উপজেলার কালিকাপুর গ্রামের মৃত কাজী আব্দুল মমিনের পুত্র সরকারি বৃন্দাবন কলেজের ছাত্র কাজী আলা উদ্দিন ও তার বন্ধু সরোয়ার আলম এবং সাইফুল ইসলাম রিংকু। ট্রেনটি শাহজীবাজারে পৌঁছলে দায়িত্বরত রেল পুলিশ রওশন আলী ও আনসার সদস্য শহিদ এবং রমিজের সাথে তাদের বাকবিতণ্ডা হয়।

এ ঘটনার প্রতিবাদ করেন স্থানীয় চার যুবক। এক পর্যায়ে রওশন আলী ক্ষিপ্ত হয়ে রাইফলেন দিয়ে তাদের ওপর গুলি চালান। এতে ঘটনাস্থলেই কাজী আলাউদ্দিন নিহত হন। গুলিতে আলাউদ্দিনের পেটের নাড়ি ভূড়ি বের হয়ে যায়। এ সময় আহত হন আরো দুজন। হবিগঞ্জের তৎকালীন পুলিশ সুপার মাধবপুর থানার ওসি নিয়াজ মোহাম্মদকে গুলিবর্ষণকারীদের গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন। জিআরপি পুলিশের কনস্টেবল আতাউর রহমান, রওশন আলী, জসিম উদ্দিন, আনসার সদস্য আব্দুল মালেক, আছাব আলী, সহিদ মিয়া ও রমিজ উদ্দিনকে নিরস্ত্র করে গ্রেপ্তার করেন ওসি। পুলিশের কাছে তাৎণিক জিআরপি পুলিশের কনস্টেবল রওশন আলী গুলি করার কথা স্বীকার করলে অন্যদের ছেড়ে দেয়া হয়।

নিহত কাজী আলাউদ্দিনের চাচা কাজী আব্দুল কাদির বাদি হয়ে পরের ২২ ডিসেম্বর শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে একটি এজাহার দায়ের করেন। মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল জিআরপি পুলিশের তখনকার ওসি মিজানুর রহমান তদন্ত শেষে ১৯৯৬ সালের ২৬ আগস্ট রেল পুলিশ কনস্টেবল রওশন আলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করেন। তবে দীর্ঘদিন মামলা চলাকালে পুলিশ কনস্টেবল রওশন আলী উচ্চ আদালত থেকে জামিন পান। এরপর হাজিরা না দিলে আদালত তার বিরুদ্ধে পরোয়ানা ইস্যু করেন।

এ ব্যাপারে, জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি এবং অতিরিক্ত পিপি সালেহ উদ্দিন আহমেদ জানান, বিজ্ঞ বিচারক ৭জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আজ এ রায় দেন। আদালতের আদেশ মতে পরোয়ানা সংশ্লিষ্ঠ থানায় পাঠানো হবে।



ডেল্টা টাইমস্/কামরুল হাসান কাজল/সিআর/এমই

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
  এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ  
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো. জাহাঙ্গীর আলম, নির্বাহী সম্পাদক: মো. আমিনুর রহমান
প্রকাশক কর্তৃক ৩৭/২ জামান টাওয়ার (লেভেল ১৪), পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত
এবং বিসমিল্লাহ প্রিন্টিং প্রেস ২১৯ ফকিরাপুল, মতিঝিল থেকে মুদ্রিত।

ফোন: ০২-৪৭১২০৮৬১, ০২-৪৭১২০৮৬২, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো. জাহাঙ্গীর আলম, নির্বাহী সম্পাদক: মো. আমিনুর রহমান
প্রকাশক কর্তৃক ৩৭/২ জামান টাওয়ার (লেভেল ১৪), পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত
এবং বিসমিল্লাহ প্রিন্টিং প্রেস ২১৯ ফকিরাপুল, মতিঝিল থেকে মুদ্রিত।
ফোন: ০২-৪৭১২০৮৬১, ০২-৪৭১২০৮৬২, ই-মেইল : [email protected], [email protected]