রোববার ১৯ মে ২০২৪ ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

আত্মহত্যা একটি সামাজিক ব্যাধি তা নির্মূল করতে হবে
রাশেদুজ্জামান রাশেদ
প্রকাশ: শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৪:১৮ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

.

.

সুন্দর এই পৃথিবীতে প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করে সকলে সুন্দর ভাবে বাঁচতে চায়। পৃথিবীতে কেউ অকালে মৃত্যুবরণ করতে আসে না। তাই তো মৃত্যু এবং জীবন কিন্তু বিপরীত নয় বরং মৃত্যু হলো জীবনের অংশ। মানবদেহে অক্সিজেন ও কার্বন ডাই অক্সাইডের আদান প্রদান বন্ধ হয়ে গেলে মানব দেহের আর কোন মূল্য থাকে না। ফলে মৃত্যুর মধ্য দিয়ে সশরীরে চিরবিদায় নেয়। কিন্তু সে মৃত্যু যদি অকাল অর্থাৎ আত্মহত্যা হয় তখন বলতেই হয় পৃথিবীর সবচেয়ে জঘন্য কাজ  হচ্ছে নিজের প্রতি অবমাননা করে আত্মহত্যার পথ বেছে নেওয়া কাজ। আত্মহত্যার খবর শুনে কেন যেন বুক কেঁপে ওঠে। তখন মনে হয় সুন্দর একটা ফুল ঝরে গেলে । সেই ফুলের রূপ আর দেখতে পাব না। কেন ফুল বললাম কারণ পৃথিবীর প্রত্যেক সন্তান তার বাবা মায়ের কাছে একেকটি ফুল। সে যদি অকালে ঝরে যায় তাহলে সে ফুলের ঘ্রাণের বন্ধ হয়ে যাবে। পরিবারের শুরু হবে অশান্তি আর দুর্দশা। ফলে আমরা বলতে পারি আত্মহত্যা একটি সামাজিক ব্যাধি ।

বিশ্বে এই সামাজিক ব্যাধি ছড়িয়ে পড়ছে। প্রত্যেক দেশে কম বেশি দেখা যায় মানুষের আত্মহত্যা। ফলে এই ব্যাধির বাইরে নয় মুক্তিযুদ্ধের দেশ বাংলাদেশ। আমাদের সবুজ শ্যামল বাংলাদেশে আত্মহননের খবর হরহামেশই পত্রিকার পাতায় পাতায় দেখা যায়। এর থেকে পরিত্রাণের উপায় কি আমরা খুঁজে বের করতে পারছি? আত্মহত্যা বন্ধের যথাযথ পদক্ষেপ কি নিতে পারছি। আমাদের যুব সমাজ কোন পথে চলছে? প্রত্যেকটি আত্মহত্যার দায় কে নিবে? রাষ্ট্র না কি আত্মহত্যাকারীর পরিবার? কেন আত্মহত্যার খবর বিদ্যুৎ গতিতে বেড়েই চলছে। প্রশ্ন গুলোর করার আগে উদ্বিগ্ন হতে হয় এমন মর্মান্তিক ঘটনায়।  আত্মহত্যা কেউ হুট করে হয় না। এর পেছনে অনেক কারণ লুকিয়ে আছে।  

ঠিক সময়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারলে অবশ্যই আত্মহত্যা ঠেকানো অসম্ভব বলে কিছু নেই।  তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ‘প্রিভেন্টিং সুইসাইড: অ্যা সোর্স ফর মিডিয়া প্রফেশনালস ২০১৭’ জরিপ বলছে, ‘প্রতিবছর বিশ্বে ১০ লাখ মানুষ আত্মহত্যা করে। প্রতি ৪০ সেকেন্ডে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে একটি।’ আরও একটি জরিপ বলছে, ‘গত ৪৫ বছরে আত্মহত্যার ঘটনা ৬০ শতাংশ বেড়েছে। বিশ্বে বর্তমানে ১৫ থেকে ৪৪ বছর বয়সী মানুষের মৃত্যুর প্রধান তিনটি কারণের মধ্যে একটি হচ্ছে আত্মহত্যা।

 আমাদের দেশে আত্মহত্যার কারণ হিসেবে দেখা যায় মেয়েদের ক্ষেত্রে ইভটিজিং,যৌতুকের চাপ, অভাব, হতাশা, পারিবারিক কিংবা সামাজিক নির্যাতনের মতো ঘটনায় আত্মহত্যার পথে এগোত। হয়তো তারা ভাবত এটাই মুক্তির একমাত্র পথ। আর ছেলেদের বেলায় প্রেমে ব্যর্থতা, অভিমান, নেশাগ্রস্ততা কিংবা জীবনের দায়ভার নেওয়ার সাহস না থাকাটাই হয়ে দাঁড়াত আত্মহত্যার কারণ। তবে সময় পরিবর্তনের সাথে সাথে আত্মহত্যার ধরণ কিছুটা পরিবর্তন এসেছে ফ্রি ফায়ার গেইম খেলতে না দেওয়ায় আত্মহত্যা, নতুন মোবাইল কিনে না দেওয়ায় আত্মহত্যা, নতুন পোশাক কিনে না দেওয়ায় আত্মহত্যা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় হতাশায় নিমজ্জিত হয়ে আত্মহত্যার দিকে ঝুঁকছে।

নৈতিক স্খলন, তথ্যপ্রযুক্তির অপব্যবহার, ব্ল্যাকমেইলিং এর কারণে কিশোর-কিশোরী, যুবক- যুবতী ও নারী- পুরুষদের মধ্যে আশংকাজনক হারে আত্মহত্যার প্রবণতা বেড়েছে। মানুষ অতিমাত্রায় হতাশাগ্রস্ত ও সংবেদনশীল হওয়ায় আত্মহত্যার দিকে ঝুঁকে পড়ছে। সামাজিক বৈষম্য, পারিবারিক কলহ, মাদক, সন্তানের প্রতি অভিভাবকদের উদাসীনতা, পারিবারিক বন্ধন ভঙ্গুর হয়ে আসার মতো কারণগুলো প্রকট আকার ধারণ করায় মানুষের মধ্যে আত্মহত্যার মতো জঘন্য অপরাধের প্রবণতা বাড়ছে। বিশেষ করে করোনায় মানুষ কাজ হারিয়ে হতভম্ব হয়ে পড়েছে। জীবনের অবমূল্যায়ন, বেতন কমে যাওয়া, সন্তান স্কুলে না যাওয়ার কারণে মানুষ চরম হতাশা ও বিষণ্নতায় ভুগছে। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে মানুষ বৃদ্ধি ও আবেগ নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলছে। এতে আত্মহত্যার প্রবণতা বাড়ছে।

আমাদের সমাজে দুই ধরনের আত্মহত্যার ঘটনা দেখা যায়, আগে থেকেই পরিকল্পনা করে, আয়োজন করে, সুইসাইড চিরকুট লিখে আত্মহত্যা করেন সেটাকে বলা হয় ডিসিসিভ সুইসাইড। আবার হুট করে আবেগের রাশ টানতে না পেরে আত্মহত্যা করেন সেটাকে ব হয় ইমপালসিভ সুইসাইড। তবে কিশোর-কিশোরী বা শিক্ষার্থীদের মধ্যে বেশি ডিসিসিভ সুইসাইড লক্ষ্য করা যায় কারণ তারা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মৃত্যু আর আত্মহত্যা নিয়ে নিজের ইচ্ছার কথা প্রকাশ করেন। আত্মহত্যা বা মৃত্যুবিষয়ক কবিতা–গান লিখতে, শুনতে বা পড়তে আগ্রহ বেশি। মাদকাসক্তি বা ইন্টারনেটে মাত্রারিক্ত আসক্তি আত্মহত্যায় সহায়তা করে।

সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আঁচল ফাউন্ডেশনের একটির সমীক্ষার তথ্য দেখে বলতেই হয় শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড কিন্তু সেই মেরুদণ্ড দুর্বল হয়ে যাচ্ছে কারণ ২০২২ সালে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের ৫৩২ জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। আত্মহননের পথ বেছে নেওয়া এই শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৩৪০ জন বা ৬৪ শতাংশই স্কুল পর্যায়ের। এছাড়া কলেজ পর্যায়ে ১০৬ জন শিক্ষার্থী আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছে। সমমান প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থী রয়েছেন ৫৪ জন। “শিক্ষার জন্য এসো সেবার জন্য বেরিয়ে যাও” এমন স্লোগানে দেখা যায় অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কিন্তু প্রশ্ন হলো শিক্ষার জন্য এসে কেন লাশ হয়ে বেরিয়ে যায় তা একটু ভাববার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়ে যায়। পণ্য মুখী শিক্ষায় ব্যবস্থায় যে শিক্ষার সংকট গভীরে পৌঁছে গেছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তারমধ্যে আবার শিক্ষাজীবন শেষ করে বেকার হয়ে পাগলা ঘোড়ার মত চাকরির পেছনে ছুটতে গিয়ে অনেকেই হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়ে। বেকারত্বের অভিশাপ যেন কিছুতেই সহ্য করতে পারে না।

তবে  এর বাইরে আরও কিছু কারণ আছে সারা রাত জেগে থাকা আর সারা দিন ঘুমানো। এমন কি পড়ালেখা, খেলাধুলা, শখের বিষয় থেকে নিজে দূরে রাখে। নিজেকে গুটিয়ে রাখে যে কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করে না। নিজেই নিজের ক্ষতি করেন যেমন প্রায়ই এঁরা নিজের হাত-পা কাটেন, বেশি বেশি ঘুমের ওষুধ খান। মনমরা হয়ে থাকে কাজে প্রতি উৎসাহ হারিয়ে ফেলে নিজেকে সব সময় দোষী ভাবতে শুরু করে। এমন লক্ষণ প্রকাশ পেলে তার প্রতি বিশেষ যত্ম নিতে হবে এবং প্রয়োজনে মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ দিতে হবে।

তাই নিজে সচেতন হই, অপরকেও সচেতন হতে সাহায্য করি। নিজের জীবনকে উপভোগ করি। একাকিত্ব ভালো না লাগলে পরিবারের অন্য সদস্যদের বুঝিয়ে বলতে হবে এবং সুযোগ থাকলে ভ্রমণে যেতে হবে। মাদকাসক্তি বা ইন্টারনেটে মাত্রারিক্ত আসক্তি থেকে বিরত থাকতে হবে। পড়ালেখা, খেলাধুলা, শখের কাজে ব্যস্ত থাকতে হবে। আত্মহত্যা প্রতিরোধ করতে হলে সবাইকে যার যার ক্ষেত্র থেকে একযোগে কাজ করতে হবে। শিশুদের বিকাশের সময় তাদের এমনভাবে গড়ে তুলতে হবে, যাতে তারা সফলতার মতো ব্যর্থতাকে মেনে নিতে পারে। তার জন্য প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তর থেকে গড়ে তুলতে হবে। আত্মহত্যার উপকরণ, যেমন ঘুমের ওষুধ, কীটনাশকের সহজলভ্যতা কমাতে হবে। প্রেসক্রিপশন ছাড়া ঘুমের ওষুধ বিক্রি বন্ধ করতে হবে। যেকোনো ধরনের মানসিক সমস্যা বা আত্মহত্যার ইঙ্গিত পেলে দ্রুত মনোরোগ বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হতে হবে। আত্মহত্যা একটি সামাজিক ব্যাধি তা শতভাগ নির্মূল করার জন্য রাষ্ট্রের মৌলিক দায়িত্ব ও কর্তব্য যথাযথ ভাবে পালন করতে হবে। সেই সাথে  নাটক, সিনেমা ও পথসভার মাধ্যমে আত্মহত্যা কুফল সম্পর্কে গণসচেতনা বাড়াতে হবে।



লেখক: প্রাবন্ধিক ও কলামিস্ট ।

ডেল্টা টাইমস/সিআর/এমই

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
  এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ  
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো. জাহাঙ্গীর আলম, নির্বাহী সম্পাদক: মো. আমিনুর রহমান
প্রকাশক কর্তৃক ৩৭/২ জামান টাওয়ার (লেভেল ১৪), পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত
এবং বিসমিল্লাহ প্রিন্টিং প্রেস ২১৯ ফকিরাপুল, মতিঝিল থেকে মুদ্রিত।

ফোন: ০২-৪৭১২০৮৬১, ০২-৪৭১২০৮৬২, ই-মেইল : deltatimes24@gmail.com, deltatimes24@yahoo.com
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো. জাহাঙ্গীর আলম, নির্বাহী সম্পাদক: মো. আমিনুর রহমান
প্রকাশক কর্তৃক ৩৭/২ জামান টাওয়ার (লেভেল ১৪), পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত
এবং বিসমিল্লাহ প্রিন্টিং প্রেস ২১৯ ফকিরাপুল, মতিঝিল থেকে মুদ্রিত।
ফোন: ০২-৪৭১২০৮৬১, ০২-৪৭১২০৮৬২, ই-মেইল : deltatimes24@gmail.com, deltatimes24@yahoo.com