রোববার ১১ এপ্রিল ২০২১ ২৭ চৈত্র ১৪২৭

দুই ডোজের তিন মাস ব্যবধানে কোভিশিল্ড ৯০ শতাংশ কার্যকর
ডেল্টা টাইমস্ ডেস্ক :
প্রকাশ: বুধবার, ৭ এপ্রিল, ২০২১, ১১:০৬ এএম | অনলাইন সংস্করণ

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন কোভিশিল্ডের প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজের মধ্যে ব্যবধান দুই থেকে তিন মাস হলে কার্যকারিতা ৯০ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি পায় বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির সিইও আদর পুনাওয়ালা।

মানুষের ওপর দুই থেকে তিন মাসের ব্যবধানে ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ প্রয়োগের পর এ কার্যকারিতা পাওয়া গেছে বলে জানান তিনি।

মঙ্গলবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে ২০২১ সালের শুরুতে চিকিৎসাবিষয়ক আন্তর্জাতিক জার্নাল ‘দ্য ল্যানসেট’-এর একটি গবেষণায় বলা হয়েছিল, অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি ভ্যাকসিনের দুটি ডোজের মধ্যে এক মাসের ব্যবধান থাকলে এর কার্যকারিতা ৭০ শতাংশ।
দুই ডোজের তিন মাস ব্যবধানে কোভিশিল্ড ৯০ শতাংশ কার্যকর

দুই ডোজের তিন মাস ব্যবধানে কোভিশিল্ড ৯০ শতাংশ কার্যকর


আদর পুনাওয়ালা বলেন, এক মাসের ব্যবধানে ডোজ দেয়ার সময় ভ্যাকসিনটি ৭০ শতাংশ প্রভাব ফেলে। প্রায় এক হাজার লোকের ওপরে একটি গবেষণা করা হয়েছিল, যাদের ভ্যাকসিনের দুটি ডোজ দেয়া হয়েছিল। এর মধ্যে আরও একটি পরীক্ষা হয় যেখানে, দুটি ডোজের ব্যবধান ছিল ২-৩ মাস। সেই গবেষণার ফলাফলে দেখা গেছে, যদি ভ্যাকসিনের ডোজ ২-৩ মাসের ব্যবধানে লোককে দেয়া হয় তবে এর কার্যকারিতা ৯০ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি পাবে।

ভ্যাকসিন ডোজের মধ্যে যত বেশি ব্যবধান থাকে, ততই টিকার প্রভাব মানুষের উপর পড়বে উল্লেখ করে পুনাওয়ালা বলেন, অন্য ভ্যাকসিনগুলোও দুটি ডোজের মধ্যে দীর্ঘ ব্যবধান দেয়া হয়।

ভারতে গত মাসে জাতীয় বিশেষজ্ঞ দলের সুপারিশে কোভিশিল্ডের প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজের মধ্যে ব্যবধান আট সপ্তাহ বাড়ানোর কথা নির্দেশ জারি করা হয়েছিল। তবে এই ব্যবধান যেন আট মাসের থেকে বেশি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে বলেছিল কর্তৃপক্ষ।

বিভিন্ন দেশের পরিচালিত গবেষণাগুলোতে দেখা গেছে, করোনা ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা তখনই বৃদ্ধি পাবে যখন দুটো ডোজের মধ্যে ব্যবধান ৬ সপ্তাহ হবে।

সেরামের সিইও জানান, ৫০ বছরের কম বয়সীদের ক্ষেত্রে কোভিশিল্ডের এক ডোজে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ সুরক্ষা দেয়। তিনি বলেন, এক ডোজে প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষ পূর্ণাঙ্গ সুরক্ষা পান। দ্বিতীয় ডোজের প্রয়োজন হয় দীর্ঘমেয়াদি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরির জন্য।

করোনার ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণের পরেও মানুষের মাস্ক ব্যবহার করা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ বলে মত দেন পুনাওয়ালা।

সেরামে উৎপাদিত কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন বাংলাদেশেও প্রয়োগ হচ্ছে। দেশের শীর্ষ ওষুধ প্রস্তুতকারী কোম্পানি বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস তিন কোটি ডোজ টিকা আনতে সেরামের সঙ্গে চুক্তি করেছে। সেরাম ইতোমধ্যে ৯০ লাখ ডোজ টিকা সরবরাহ করেছে। আর ভারত সরকার উপহার হিসেবে ৩২ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন দিয়েছে বাংলাদেশকে।




ডেল্টা টাইমস্/সিআর/জেড এইচ

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
  এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ  
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: জাহাঙ্গীর আলম, নির্বাহী সম্পাদক: মো: আমিনুর রহমান
প্রধান কার্যালয়: মহাখালী ডিওএইচএস, রোড নং-৩১, বাড়ী নং- ৪৫৫, প্রকাশক কর্তৃক বিসমিল্লাহ প্রিন্টিং প্রেস থেকে মুদ্রিত
২১৯ ফকিরাপুল (১ম লেন নীচ তলা), মতিঝিল থেকে প্রকাশিত।  বাণিজ্যিক কার্যালয়: ৩৭/২ জামান টাওয়ার (১৫ তলা), পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।

ফোন: ০২-৪৭১২০৮৬১, ০২-৪৭১২০৮৬২, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: জাহাঙ্গীর আলম, নির্বাহী সম্পাদক: মো: আমিনুর রহমান
প্রধান কার্যালয়: মহাখালী ডিওএইচএস, রোড নং-৩১, বাড়ী নং- ৪৫৫, প্রকাশক কর্তৃক বিসমিল্লাহ প্রিন্টিং প্রেস থেকে মুদ্রিত
২১৯ ফকিরাপুল (১ম লেন নীচ তলা), মতিঝিল থেকে প্রকাশিত।  বাণিজ্যিক কার্যালয়: ৩৭/২ জামান টাওয়ার (১৫ তলা), পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।
ফোন: ০২-৪৭১২০৮৬১, ০২-৪৭১২০৮৬২, ই-মেইল : [email protected], [email protected]